দেশের বাজারে পিঁয়াজের সংকট ও দর কমাতে ব্যবসায়ীদের আমদানিকৃত পিঁয়াজ একে একে আসতে শুরু করেছে চট্টগ্রাম বন্দরে। আজও (বুধবার) পাকিস্তান থেকে আসা ১৭৫ টন পিঁয়াজ খালাস করা হয়েছে।

ভারতের বিকল্প হিসাবে অন্তত ১২টি দেশের পিঁয়াজে দেশের বাজার সয়লাব হয়ে যাবে বলে ধারণা করছেন দেশের পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা। এছাড়া বাংলাদেশ ট্রেডিং করপোরেশনের (টিসিবি) ট্রাকগুলোতেও এখন মিলবে দেশি পিঁয়াজ।

টিসিবির চট্টগ্রাম আঞ্চলিক প্রধান জামাল উদ্দিন আহমদ জানান, এখন থেকে টিসিবির ট্রাকে দেশি পিঁয়াজ বিক্রি হবে ভোক্তা পর্যায়ে প্রতি কেজি ৩০ টাকা। নগরের বিভিন্ন স্পটে ২০টি ট্রাকে পিঁয়াজ, চিনি, সয়াবিন তেল, মশুর ডাল বিক্রি হচ্ছে। প্রতিটি ট্রাকে ২০০ কেজি পিঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান বুলবুল জানান, মিয়ানমার ও পাকিস্তান থেকে আসা ১৭৪ টন পিঁয়াজের ছাড়পত্র ইস্যু করেছি আমরা। এ কেন্দ্র থেকে ১ লাখ ৪৭ হাজার ৫৫৪ টন পিঁয়াজ আমদানির জন্য ৩২২টি অনুমতিপত্র (আইপি) নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। চীন, মিশর, তুরস্ক, মায়ানমার, নিউজিল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, মালয়েশিয়া, সাউথ আফ্রিকা, ইউক্রেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), ভারত (২০০ টন) ও পাকিস্তান- এ ১২ দেশ থেকে এসব পেঁয়াজ আনবেন তারা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *